img
Home / আন্তর্জাতিক / বিশ্বের শীর্ষ ১০টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম

বিশ্বের শীর্ষ ১০টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিশ্বের এক অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শক্তিতে পরিণত হয়েছে। সারা বিশ্বের মানুষের মধ্যে দূরত্ব কমিয়েছে এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। কিছু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কয়েক বছর ধরে অনেক বেশি জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এবার দেখা যাক বিশ্বের শীর্ষ ১০টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। এটি তৈরি করা হয়েছে এপ্রিল ২০১৭ পর্যন্ত ঐ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোর একটিভ ইউজার হিসাব করে।

ফেসবুকঃ

এক নম্বরে রয়েছে ফেসবুক। মার্ক জুকারবার্গ (চেয়ারম্যান, সি ই ও), এডুয়ার্ডো সাডেরিন, এনড্রিউ ম্যাককালাম, ডাসটিন মস্কোভিটজ্‌ এবং ক্রিস হাঘ্‌স ২০০৪ সালে এটি প্রতিষ্ঠা করেন। এটি বর্তমানের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। উল্লেখ্য ১০টির মধ্যে এটি সবচেয়ে পুরানো। এখানে ইউজাররা তাদের প্রোফাইল থেকে অন্যকে ফ্রেন্ড হিসেবে অ্যাড করতে পারেন আবার অন্যদের পোষ্ট লইকে, কমেন্ট বা শেয়ার করতে পারেন।

হোয়াটস অ্যাপঃ

এই তালিকায় দুই নম্বরে রয়েছে হোয়াটস অ্যাপ। যার রয়েছে ১ বিলিয়ন একটিভ ইউজার। এটি ব্যাবহারকারীদের টেক্সট ম্যাসেজ, ভয়েস কল, ভিডিও কল, ছবি, গিফ প্রেরণসহ ইত্যাদি সুবিধা দিয়ে থাকে। ব্রিয়ান অ্যাক্টন এবং জান কল ২০০৯ সালে এটি প্রতিষ্ঠা করেন।

ইউটিউবঃ

ইউটিউব রয়েছে শীর্ষ দশ এর তিন নম্বরে। স্টিভ চেন, চাদ হায়লে এবং জাওয়েদ করিম ২০০৫ সালে এটি প্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমানে এটি গুগলের একটি অংশ। এতে মানুষ ভিডিও আপলোড, শেয়ার, রেট ইত্যাদি করতে পারেন। এছারাও তারা একে অন্যকে সাবস্ক্রাইবও করতে পারেন।

ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারঃ

নম্বর চার এ আছে ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার, যার একটিভ ইউজার সংখ্যা ১ বিলিয়ন। এটি ওয়েব বেজ ফেসবুকের সাথে সম্পৃক্ত। এটি ২০১১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি দিয়ে মূলত ফেসবুক ইউজাররা ম্যাসেজিং করতের পারেন। এছারাও অডিও এবং ভিডিও কল করা যায়।

উইচ্যাটঃ

উইচ্যাট আছে শীর্ষ ১০ এর পাঁচ নম্বরে। এর একটিভ ইউজার সংখ্যা ৮৮৯ মিলিয়ন। এটি টেন্সেন্ট ২০১১ সালে প্রতিষ্ঠা করে। এর পূর্বনাম মা হুয়াটেং। এর দ্বারা ইউজাররা টেক্সট ম্যাসেজ, ভিডিও ম্যাসেজ ইত্যাদি সুবিধা ভোগ করতে পারেন।

কিউ কিউঃ

ছয় নম্বরে রয়েছে ৮৬৮ মিলিয়ন একটিভ ইউজার নিয়ে কিউ কিউ। এটি ২০১৬ সালে টেন্সেন্ট প্রতিষ্ঠা করে। যদিও এটির বেশিদিন হয় নি তবুও এই অল্প সময়ের মধ্যে এটি খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ইউজাররা এতে অনলাইন গেমস্‌, শপিং, গান, মাইক্রব্লগিং, মুভি, গ্রুপ চ্যাট, ভিডিও চ্যাট করতে পারেন।

ইন্সটাগ্রামঃ

শীর্ষ ১০ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মধ্যে ৭ নম্বরে রয়েছে ইন্টারনেট ভিত্তিক ছবি শেয়ারিং অ্যাপস্‌ ইন্সটাগ্রাম। এর রয়েছে ৫৫০ মিলিয়ন একটিভ ইউজার। ২০১০ সালে চালু হওয়া এটি দ্বারা ইউজাররা তাদের ছবি শেয়ার করতে পারে। কেভিন সিস্টোম এবং মাইক ক্রিগার এটি প্রতিষ্ঠা করেন।

কিউ জোনঃ

আট নম্বরে আছে কিউ জোন। যার রয়েছে ৫৫০ মিলিয়ন একটিভ ইউজার। টেন্সেন্ট ২০০৫ সালে কিউ জোন তৈরি করে। ইউজাররা এতে ডায়েরি রাখা, গান শুনা, ব্লগ লেখা, ভিডিও দেখা, ছবি পাঠানো ইত্যাদি করতে পারেন। কিউজোন সব মেম্বারদের জন্য আলাদাভাবে সাজানো যায়। ইউজাররা তাদের পছন্দ  অনুযায়ী এটির ব্যাকগ্রাউন্ড সাজাতে পারেন।

টাম্বলারঃ

৫৫০ মিলিয়ন একটিভ ইউজার নিয়ে নবম স্থানে আছে টাম্বলার। এটিও একটি মাইক্রো ব্লগিং এবং  সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট। ২০০৭ সালে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ডেভিড কার্প, কোম্পানির সি. ই. ও. এটি প্রতিষ্ঠা করেন। টাম্বলারে ব্যাবহারকারীগণ বিভিন্ন ধরণের মাল্টিমিডিয়া পোষ্ট এবং অন্যান্য ছোট ব্লগ পোষ্ট করতে পারেন।

visit: Tumblr

টুইটারঃ

দশম স্থানে রয়েছে মাইক্রোব্লগিং ওয়েবসাইট টুইটার। এর রয়েছে ৩১৯ মিলিয়ন একটিভ ইউজার। এটি মূলত একটি অনলাইন  সংবাদপত্র এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যেখানে মানুষ বার্তা পোষ্ট করে। যা টুইটস্‌ নামে পরিচিত। এটি ২০০৬ সালে যাত্রা শুরু করে। জেক ডোরসে (সি ই ও), নোয়াহ গ্লাস , বিজ স্টোন এবং ইভান উইলিয়ামস্‌ এটি প্রতিষ্ঠা করেন।

এই ছিল বিশ্বের শীর্ষ ১০ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। বিস্ময়ের কথা হচ্ছে বিশ্বে প্রতি ৭ জনের মধ্যে ১ জন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যাবহার করে। এগুলো অবশ্যই বিশ্বকে অনেক ছোট করে দিয়েছে কিন্তু সাথে সাথে ভয় থেকে যায় সাইবার ক্রাইম এর। আমরা এটাই চাই যে এগুলো যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবেই ব্যবহার করা হউক, অপরাধের জন্য নয়।

Comments Below

comments

  • Facebook
  • Twitter
  • Google+
  • Pinterest
  • stumbleupon